সাইদুরসহ তিনজনের সাড়ে ৭ বছর করে কারাদন্ড

সাইদুরসহ তিনজনের সাড়ে ৭ বছর করে কারাদন্ড

প্রবাহ রিপোর্ট
নিষিদ্ধ জঙ্গী সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) শীর্ষ নেতা সাইদুর রহমানসহ তিনজনের সাড়ে ৭ বছর ক রে কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।
বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকার বিশেষ জজ-৬ এর বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন। দন্ডপ্রাপ্ত অপর দুই আসামি হলেন- আবদুল্লাহিল কাফী ও আয়েশা আক্তার। রায়ে সন্ত্রাসবিরোধী আইন-২০০৯ এর ৮ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে প্রত্যেককে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে তাদের আরো এক মাসের করে কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। একই আইনের ৯ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে তাদের ৭ বছর করে কারাদন্ড, ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। এদিকে ১০ ধারায় তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হলেও রাষ্ট্রপক্ষ তা প্রমাণ করতে না পারায় ওই ধারার অভিযোগ থেকে তিন আসামিকে খালাস দিয়েছেন বিচারক। রায় ঘোষণার আগে বিচারক পর্যবেক্ষণে বলেন, মাওলানা সাইদুর রহমান ইসলাম সম্পর্কে অভিজ্ঞ হয়েও ইসলামের মনগড়া ব্যাখ্যা ছড়িয়েছেন এবং প্রচার করেছেন। তাগুতিদের বিরুদ্ধে তিনি আক্রমণাত্মক কথাবার্তা বলেছেন। জেএমবির শুরুর দিকে যে লিফলেট পাওয়া গেছে গ্রেপ্তারের সময় সেই একই লিফলেট সাইদুর রহমানসহ অপর আসামিদের কাছ থেকে পাওয়া গেছে। এদিকে সংশ্লিষ্ট আদালতের পিপি কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, রায়ে বলা হয়েছে, আসামিদের দুই ধারার সাজা পরপর খাটতে হবে। অর্থাৎ তাদের মোট সাত বছর ছয় মাস জেলে কাটাতে হবে। দন্ডপ্রাপ্তদের হাজতবাসের সময়ও সাজা খাটা হিসেবে গণ্য হবে। ফলে ঠিক সাত বছর আগে এই দিনে গ্রেপ্তার হওয়া সাইদুর রহমানকে এ মামলায় সাজা খাটতে হবে আর ছয় মাস। আগামী ২৫ নভেম্বর তার সাজার মেয়াদ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবী শাহনাজ সাথী। রায় ঘোষণাকালে আসামিদের মধ্যে সাইদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামিরা জামিন নিয়ে পলাতক আছেন। রায় ঘোষণার কিছুক্ষণ আগে সাইদুর রহমানকে হুইল চেয়ারে করে আদালতে আনা হয়। রায় শুনে প্রতিক্রিয়ায় সাইদুর রহমান বলেন, আমি কখনোই এর সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম না। আমি নির্দোষ। আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে, তা সঠিক নয়। এ ধরনের কাজ আমি কখনোই করিনি।

SHARE THIS NEWS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top