সাতক্ষীরায় পাঁচটি দোকান ভাঙচুর ও মালামাল লুট, ৪ জনকে পিটিয়ে জখম

শহীদুল ইসলাম, সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : জেলখানা থেকে বের হওয়ার দু’ ঘন্টা পার না হতেই প্রতিপক্ষের একটি দোকানঘরে নগদ টাকাসহ দু’লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে পাঁচটি দোকানঘর ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ভাঙচুর করা হয়েছে একটি ওষুধের দোকানে। লুট করা মাল নিয়ে যেতে ও ভাঙচুরে বাধা দেওয়ায় একই পরিবারের চারজনকে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার চম্পাফুল কালিবাড়ি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় দু’জনকে আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীনরা হচ্ছে আশাশুনি উপজেলার গোদাড়া গ্রামের আমিনউদ্দিন সরদারের ছেলে শাহীনুর সরদার (৪৮) ও নজরুল ইসলাম সরদারের ছেলে তানভির সরদার (২৫)।
আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন শাহীনুর সরদার জানান, ২০০৯ সালের ২০ আগস্ট রেজিস্ট্রি দলিল মূলে চম্পাফুল গ্রামের হিমনাথ ম-লের কাছ থেকে তিনিসহ তার তিন ভাই চম্পাফুল মৗজায় ডিপি ৪৪১ খতিয়ানের ৩৩ ও ৩৪ দাগে এক একর ৫৮ শতকের মধ্যে সোয়া ১০ শতক জমি কেনেন। ওই জমিতে সনাক্তকারী হিসেবে চম্পাফুল ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক গাইন ও সাক্ষী হিসেবে হিমনাথ ম-লের ছেলে পরিতোষ ম-ল সাক্ষর করেন। নকশা অনুযায়ী ওই জমির মধ্যে কালিবাড়ি বাজারে কালিবাড়ি থেকে উজিরপুরগামী দু’ শতক জমি রয়েছে। যাতে তাদের পাঁচটি দোকানঘর রয়েছে।
ঘুষুড়ে গ্রামের কাঁকড়া ব্যবসায়ী সামছুর রহমান জানান, প্রতিপক্ষ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফের দল করায় যে কোন সময় শোডাউনের নামে মোজাম্মেল হকের লোকজন তার নির্মাণাধীন দোকানঘর ভেঙে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন। একইভাবে আতঙ্কে রয়েছেন মোজামবিরোধী ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ।
আশাশুনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ সুমন কুমার ঘোষ জানান, শাহীনুর রহমান ও তানভিরের মাথায় ভারী জিনিস দিয়ে আঘাত করার ফলে বেশ কয়েকটি সেলাই দিতে হয়েছে। এ ছাড়া তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
কালিগঞ্জ উপজেলার চম্পাফুল ইউপি’র কারামুক্ত চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক গাইন হামলা, ভাঙচুর, লুটপটের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে বলেন, সাবেক ইউপি সদস্য রেজাউল ইসলামসহ কয়েকজন স্থানীয় এক হিন্দুর জমি দখল করে টিন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে জবরদখল করে রেখেছিল। সোমবার স্থানীয় লোকজন তা অপসারণ করে জায়গা খালি করে দিয়েছে।
কালিগঞ্জ থানার ওসি সুবীর দত্ত জানান, খবর পেয়ে উপপরিদর্শক হেকমত আলীকে সোমবার রাত ৯টার দিকে কালিবাড়ি বাজারে পাঠানো হয়। মঙ্গলবার বেলা তিনটা পর্যন্ত এ ঘটনায় থানায় কোন লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

SHARE THIS NEWS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top