শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বাধা এলে বুকের  রক্ত দিয়ে প্রতিহতের সিদ্ধান্ত

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বাধা এলে বুকের রক্ত দিয়ে প্রতিহতের সিদ্ধান্ত

আজ খুলনার রাজপথ দখলে রাখবে বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার : দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বিএনপির চেয়ারপারসন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ভাষণকে স্বাগত জানিয়ে খুলনা মহানগর বিএনপির নেতারা বলেছেন, সংঘাত, হানহানি, নৈরাজ্য নয়। বিএনপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা জনসাধারণকে সাথে নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন চালিয়ে যাবে। তারা বলেন, আদালতকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রেখে একদলীয় নির্বাচন আয়োজনের পাঁয়তারা চলছে। বুকের রক্ত দিয়ে জাতীয়তাবাদের সৈনিকেরা সেই চক্রান্ত রুখে দেবে।
আজ ৮ ফেব্রুয়ারি দুদকের দায়ের করা মামলার রায়ের দিন নির্ধারিত থাকার প্রেক্ষিতে দেশব্যাপী সৃষ্ট উত্তেজনাকর পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে করণীয় নির্ধারণে বুধবার কেডি ঘোষ রোডে দলীয় কার্যালয়ে নগর বিএনপির শীর্ষ নেতাদের এক জরুরি বৈঠকে এসব কথা বলা হয়।
সভার সভাপতি নগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, বিএনপির পাশাপাশি ছাত্রদল-যুবদল-স্বেচ্ছাসেবকদল-শ্রমিকদলের সর্বোচ্চ সংখ্যক নেতাকর্মী বৃহস্পতিবার সকাল থেকে রাজপথে অবস্থান নেবে। কোন পরিস্থিতিতেই রাজপথের দখল ছাড়া হবেনা। কোন ধরনের উসকানিতে নেতাকর্মীরা বিভ্রান্ত হবেনা। কর্মসূচি হবে শান্তিপূর্ণ।
সভায় বলা হয়, উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিএনপির নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক অধিকার পালনে বিএনপি কর্মীরা কোন ধরণের ছাড় দেবেনা। বিএনপির কর্মসূচি হবে শতভাগ শান্তিপূর্ণ। তবে পুলিশ প্রশাসনের কাছ থেকে কোন ধরনের অন্যায় আচরণ, কর্মসূচিতে বাধা প্রদান, নির্বিচারে গণগ্রেফতার করা হলে তা প্রতিরোধে দলীয় কর্মীরা তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।
সভা থেকে একদিকে বিএনপিকে সভা সমাবেশ থেকে বিরত রাখা, অপরদিকে আওয়ামী লীগকে অবাধে তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করতে দেওয়ার দ্বিমুখি আচরণের নিন্দা জানানো হয়। একই সাথে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা, মিথ্যা অপপ্রচারণা ও বানেয়াট তথ্য সম্বলিত পোস্টার নগরীজুড়ে দেওয়ালে দেওয়ালে লাগানোর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।
সভা থেকে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে খুলনা বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের হুমকি দিচ্ছে, ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ করে বলা হয়, অতি উৎসাহ ত্যাগ করে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীর ন্যায় চাকরিবিধি অনুযায়ী আচরণ না করলে ভবিষ্যতে তার জন্য জবাবদিহি করতে হবে।
সভায় উপস্থিত ছিলেন সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, মীর কায়সেদ আলী, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, শাহজালাল বাবলু, স.ম আব্দুর রহমান, ফখরুল আলম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, সিরাজুল হক নান্নু, মেহেদী হাসান দীপু, মহিবুজ্জামান কচি, এহতেশামুল হক শাওন, ইউসুফ হারুন মজনু, শামসুজ্জামান চঞ্চল প্রমুখ।

SHARE THIS NEWS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top