খুলনা ওয়াসায় এমডি পদ নিয়ে নানা ষড়যন্ত্র, মেয়াদ বৃদ্ধির পক্ষে কর্মচারীরা

স্টাফ রিপোর্টার : খুলনা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পদে চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ বৃদ্ধির প্রক্রিয়া নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। খুলনা ও চট্টগ্রামের বাইরে এবারই প্রথম চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ বৃদ্ধি না করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। তবে সরকারের বর্তমান মেয়াদের শেষ সময়ে গতানুগতিক চুক্তি বৃদ্ধি না করে নিয়োগ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এমডি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে। আগামী আগস্টে খুলনা ওয়াসার বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ’র ২য় মেয়াদে চুক্তি শেষ হচ্ছে।
জানা যায়, খুলনা মহানগরীতে সুপেয় পানি সরবরাহের লক্ষ্যে ওয়াসা প্রায় ২৫২৪ কোটি টাকার মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্প বাস্তবায়নে কয়েক দফা সময় বৃদ্ধি হলেও প্রকল্প ব্যয় বৃদ্ধি করা হয়নি। এই মেগা প্রকল্প থেকে লুটপাট করতে না পারায় এরই মধ্যে ওয়াসার একটি পক্ষ বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ’র বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।
তারা প্রকল্প বাস্তবায়নকালীন সময়ে সড়কে খোঁড়াখুঁড়ি ও জনভোগান্তি তুলে ধরে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু করেছেন। তবে ওয়াসার সাধারণ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মতে, মেগা এই প্রকল্পটি এখন শেষের পথে। প্রকল্প বাস্তবায়নের পর তা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনাই বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দেবে। এ কারণে প্রকল্পের শুরু থেকেই ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্বে থাকা মো. আব্দুল্লাহ’র একই পদে পুনরায় চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ হলে পানি সরবরাহ প্রকল্প বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা কঠিন হবে।
জানা যায়, ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রশাসনিক যোগ্যতা ও দক্ষতার কারণে ২০১২ ও ২০১৫ সালে দুইবার মো. আব্দুল্লাহর চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ বাড়ানো হয়। ওয়াসার সকল কাজের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে এরই মধ্যে তিনি টেন্ডার প্রক্রিয়ায় ইজিপি পদ্ধতি চালু করেছেন। ফলে ঠিকাদারী কাজের সাথে জড়িতরাও তার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।
তবে ২০০৯ সাল থেকে খুলনা সিটি করপোরেশন থেকে আসা ১৩৩ জন মাস্টাররোল কর্মচারীর সকলের চাকরি স্থায়ী না হওয়ায় তারা অনেকটা খোলাখুলি সমালোচনা করছেন। ২০১৭ সালে ওই ১৩৩ জনের মধ্যে ৭০ জনকে ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী হিসেবে স্থায়ী নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু যারা স্থায়ী হতে পারেননি তারা ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরোধিতা শুরু করেছেন।
তবে এক্ষেত্রে কিছুই করার ছিল না বলে জানিয়েছেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ। তিনি বলেন, স্থায়ীকরণের পদ ছিল ৭০টি। বিপরীতে মাস্টাররোল কর্মচারী ছিল ১৩৩ জন। ৬৩ জনকে বাদ পড়তেই হতো। এখানে কোনো পক্ষপাতিত্ব করা হয়নি বলে তিনি জানান।
খুলনা ওয়াসা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. নূরুজ্জামান বলেন, এর আগে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই ঢাকা ও চট্টগ্রাম ওয়াসার এমডি পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু এবারই প্রথম খুলনার ক্ষেত্রে মেয়াদ বৃদ্ধি না করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। ফলে বর্তমান এমডি নিয়মানুযায়ী ওই পদে আবেদন করবেন। পাশাপাশি আগ্রহী অন্য প্রার্থীদের যোগ্যতা যাচাই-বাছাই করে এমডি পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

SHARE THIS NEWS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top