চারদিনেও নেওয়া হয়নি ব্যবস্থা, কর্তৃপক্ষের  দাবি পানির চাপে রিং বাঁধ দেওয়া যাচ্ছেনা

চারদিনেও নেওয়া হয়নি ব্যবস্থা, কর্তৃপক্ষের দাবি পানির চাপে রিং বাঁধ দেওয়া যাচ্ছেনা

ইউএনও’র ভাঙন এলাকা পরিদর্শন

আবু হানিফ, শরণখোলা অফিস
বাগেরহাটের শরণখোলার সাউথখালী ইউনিয়নের বগীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ৩৫/১ পোল্ডারের ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে লোকালয় আর নদী একাকার হয়ে গেছে। চারদিনেও ভাঙন রোধে কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) বেলা ৩টার দিকে শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।
এদিকে, উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্প (সিইআইপি) কর্তৃপক্ষের দাবি, পানির চাপ প্রবল। তাই জরুরি রিং বাঁধের জন্য স্কেভেটর মেশিন ঘটনাস্থলে গেলেও কাজ করতে পারছেনা। জিও ব্যাগে বালু এবং মাটি ভরে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পানির চাপ কমলে কাজ শুরু হবে।
ভাঙন পরিদর্শন শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লিংকন বিশ্বাস বলেন, বগী বেড়িবাঁধের অবস্থা খুবই খারাপ। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে মাটির ব্যবস্থা করা হয়েছে। মাটি এবং বালু জিও ব্যাগে ভরে প্রস্তুত রাখা হচ্ছে। পানির চাপ কমলে সেখানে ফেলে স্কেভেটর মেশিন দিয়ে মাটি কেটে রিং বাঁধ দেওয়া হবে। পানিতে আমন এবং মৎস্য সেক্টরের যে ক্ষতি হয়েছে তা নিরুপণ করে ক্ষতিপূরণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রস্তাব পাঠানো হবে। ভাঙন পরিদর্শনকালে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সৌমিত্র সরকার ও রায়েন্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন উপস্থিত ছিলেন।
বগী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. রিয়াদুল পঞ্চায়েত বলেন, তিন দিন ধরে বগী গ্রামের তিন শতাধিক পরিবারে রান্নাবান্না হয়নি। বাজার থেকে শুকনা খাবার কিনে খেতে হচ্ছে তাদের। মানুষ স্বাভাবিক কাজকর্মও করতে পারছেনা। বলেশ্বর নদীর জোয়ারে পানির চাপে বুধবার (১০ অক্টোবর) রাতে ঘরবাড়ি ছেড়ে দুই শতাধিক লোক বগী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সুন্দরবন দাখিল মাদরাসা ও দশঘর সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিয়েছিল। ভাঙনে এলাকার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সরকারিভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থ ও খাদ্য সহায়তা দেওয়ার উচিত।
এব্যাপারে উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্পের (সিইআইপি) দায়িত্বরত প্রকৌশলী শ্যামল দত্ত বলেন, জিও ব্যাগে বালু ও মাটি ভরে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পানির চাপ কমলে ওই বস্তা ফেলে পরবর্তীতে স্কেভেটর মেশিন দিয়ে মাটি কেটে রিং বাঁধ দেওয়া হবে। শুক্রবার সকাল থেকে কাজ শুরু হবে।

SHARE THIS NEWS

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top