Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / ট্রাফিকের লক থেকে রেহাই পাচ্ছে না চার চাকার যানও

ট্রাফিকের লক থেকে রেহাই পাচ্ছে না চার চাকার যানও

মো. নাজমুল হাসান : খুলনা মহানগরীতে ট্রাফিকের লক থেকে রেহাই পাচ্ছে না নগরীর চার চাকার যানবাহনও। দুই চাকার মোটরবাইকের অবৈধ পার্কিংয়ের পাশাপাশি চার চাকার যানের যত্রতত্র পার্কিংয়ের বিরুদ্ধেও ট্রাফিক বিভাগের এই ব্যবস্থা। চালকদের লকের আতঙ্ক আর ট্রাফিক বিভাগের অবৈধ পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে তৎপরতায় সুফল পাচ্ছেন নগরবাসী।
জানা গেছে, খুলনা মহানগরীর সড়কগুলোতে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বাস, ট্রাক ও এ ধরনের বড় যান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে যে এ সকল যান চলে না তা নয়। তাদের বিরুদ্ধে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) ট্রাফিক বিভাগ মামলাসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। এদিকে নগরীতে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং না করার জন্যও রয়েছে ট্রাফিক বিভাগের নির্দেশনা। তার পরেও নির্দেশনা অমান্য করে যত্রতত্র রাখা হয় গাড়ি। আর যত্রতত্র পার্কিং করা গাড়ির বিরুদ্ধে তৎপর রয়েছে কেএমপি ট্রাফিক বিভাগ। মোটরবাইকের পাশাপাশি চার চাকার যানবাহনের যত্রতত্র পার্কিংও ট্রাফিক বিভাগের এই ব্যবস্থা থেকে রক্ষা পাচ্ছে না।
সরেজমিন শনিবার নগরীর ডাকবাংলা পিকচার প্যালেস মোড়। দুপুর ১২টার দিকে জনাকীর্ণ সড়কের এক পাশে রাখা একটি প্রাইভেটকারের সামনের চাকায় ট্রাফিকের লক লাগানো। পাশে লকের ভয়ে থামছে না অন্য কোনো গাড়ি। তৎপর রয়েছে ট্রাফিক বিভাগের দায়িত্বরতরা। এদিকে ময়লাপোতা মোড়েও যানজটমুক্ত রাখতে তৎপর থাকতে দেখা যায় ট্রাফিক পুলিশকে।
জলিল টাওয়ারে শপিং করতে আসা সোনিয়া বেগম বলেন, তিনি একটি প্রাইভেটকার নিয়ে শপিং করতে এসেছেন। নিয়মিত আসলেও কোনো দিন ট্রাফিক বিভাগের এ ধরনের বিড়ম্বনায় পড়তে হয়নি। আজ গাড়ি থেকে নামার আগেই একটি কারে লক দেখে লকের ভয়ে নামিয়ে দিয়েই চালক গাড়ি নিয়ে চলে যায়।
আব্দুল জলিল নামের এক বেসরকারি চাকরিজীবী বলেন, ট্রাফিক বিভাগের এ ধরনের উদ্যোগের ফলে সাধারণ মানুষ সুফল পাচ্ছে। যত্রতত্র পার্কিং যানজটের জন্য মানুষের সময় নষ্ট হবে না। তবে নিয়মিত মনিটরিং না করলে আবারও আগের মতো হবে।
ট্রাফিক বিভাগের ট্রায়িত্বরত ট্রাফিক সাব-ইন্সপেক্টর (টিএসআই) ওবায়দুল হক বলেন, তিনি ঢাকা থেকে নতুন এসেছেন। এভাবে এর আগে লক পড়েছে কিনা তা তিনি জানেন না। তবে গাড়ি যত্রতত্র যাতে পার্কিং না করে সেজন্য এ ব্যবস্থা করা হয়েছে। একটি গাড়িতে লক দিলে অন্য চালকরা দেখে যাতে গাড়ি পার্কিং না করে সে জন্য এ ব্যবস্থা। এ ধরনের তথ্যের জন্য তিনি অফিসিয়ালি যোগাযোগ করার জন্যও বলেন তিনি।
খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ ট্রাফিক বিভাগের ডেপুটি কমিশনার মো. সাইফুল হক বলেন, রাস্তার ওপরে গাড়ি রাখা হলে এ ধরনের ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে। তবে রাস্তার ওপরে গাড়ি রাখা ঠিক নয়। কিন্তু যারা এ ধরনের কাজ করেন তাদের বিরুদ্ধে মাঝে মাঝে তারা এ ধরনের ব্যবস্থা করতে পারেন না। এ ব্যবস্থার মাধ্যমে চালকেরা সচেতন হলে রাস্তার ওপরে গাড়ি না রাখতে চালকরা অভ্যস্ত হবে। ফলে অবৈধ পার্কিংয়ের বিড়ম্বনা থেকে রক্ষা পাবে নগরবাসী।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*