Breaking News
Home / স্থানীয় সংবাদ / মহানগরীতে মাস্টার্স পরীক্ষার্থী গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের : স্বামী আটক

মহানগরীতে মাস্টার্স পরীক্ষার্থী গৃহবধূর মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের : স্বামী আটক

স্টাফ রিপোর্টার
মহানগরীতে মাস্টার্স পরীক্ষার্থী এক নববধূ মার্জিয়া আক্তার মুক্তার মৃত্যুর ঘটনায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতের বড় ভাই কাজী কামরুল ইসলাম বাদী হয়ে নিহতের স্বামী জোবায়ের সিদ্দিককে আসামি করে হত্যা মামলাটি দায়ের করেন। খুলনা থানা পুলিশ শুক্রবার জোবায়েরকে আটক করেছেন। শনিবার ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আসামিকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।
কেএমপির সদর থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ুন কবির হত্যা মামলাটি নিশ্চিত করে বলেন, নিহতের বড় ভাই কাজী কামরুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলার আসামি জোবায়েরকে আটক করা হয়। তাকে শনিবার রিমান্ডের আবেদন করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
নিহতের বড় ভাই কাজী কামরুল ইসলাম বলেন, আমার বোনকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি জানান, শুক্রবার ১২টা ১০ মিনিটে তার বোন (মার্জিয়া আক্তার মুক্তা) ফোন করে মেঝ বোনকে। এসময় সে জানায় তার স্বামী জোবায়ের তাকে খুব মারধর করছে এবং তাকে নিয়ে যেতে বলে। নইলে সে চিরতরে মেরে ফেলবে। এর মাত্র ১৫-২০ মিনিট পর সপরিবারে তারা গিয়ে দেখেন বোনের লাশ।
কামরুল বলেন, গত ৪/৫ মাস ধরে মুক্তা তার স্বামীকে নিয়ে টুটপাড়ায় বসবাস করছেন। তাদের বিয়ের বয়স প্রায় ৭ মাস। তারা পছন্দ করে এক অপরকে বিয়ে করে। এর আগে তার পরিবারের লোকজন বাগেরহাটের এক ছেলের সাথে বিয়ে দেন মুক্তাকে। খুলনা সরকারি মহিলা কলেজে ইংরেজিতে মাস্টার্স করার কারণে টুটপাড়ায় ইউনিক কোচিং-এ পড়া শুরু করেন। জোবায়ের সেখানে শিক্ষকতা করতেন। বিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও জোবায়ের ফুসলিয়ে তার বোনকে প্রেমের ফাঁদে ফেলেন এবং স্বামীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ করাতে বাধ্য করান। এই পর্যন্ত মুক্তা সবকিছু গোপন রাখেন পরিবারের কাছে।
এরপর কোচিং এর পাশে এক বাসা নিয়ে গত ৪/৫ মাস আগে তারা বসবাস শুরু করলে বিষয়টি সবার নজরে আসে। তবে প্রায়ই মুক্তা তার বোনদের কাছে অভিযোগ করে আসছে তা ওপর অত্যাচার করা হয়। উল্লেখ্য, নিহত মুক্তা নগরীর নাজিরঘাট এলাকার কাজী লুৎফর রহমানের মেয়ে এবং আটক জোবায়ের হাজী মহসিন রোডের আবু বক্করের ছেলে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*